আওয়ামীলীগ নেতার নামে মামলা করে পালিয়ে বেড়াচ্ছে বাদী



শহিদুল ইসলাম,রাজবাড়ী থেকে

রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দি উপজেলার নারুয়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে মামলা করে পালিয়ে বেড়াচ্ছে বাদী মোঃ উজ্জল মোল্যা। ওই মামলায় আরো ১০ জনকে আসামী করা হয়েছে। তবে আসামীরা প্রকাশ্যে এলাকায় ঘোরাফেরা করছে। মামলা সুত্রে জানাগেছে, বালিয়াকান্দির নারুয়া গ্রামে পুর্ব বিরোধের জের ধরে ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ জহুরুল ইসলামের নেতৃত্বে রেজাউল ইসলাম, সোহেল, ইব্রাহিম, শাহিদুল ইসলাম, ফাইজুল, সুজন, সজিব শেখ, রাজা শেখ, আকিদুল ইসলাম ও খোকন গত ২৭ মে নারুয়া গ্রামের মান্নান মোল্যার স্ত্রী লিলি বেগম, ছেলে উজ্জল মোল্যা, ইব্রাহিম মোল্যার উপর আক্রমন করে। এসময় তারা স্থানীয় হাসেম মোল্যার বাড়ীতে আশ্রয় নিলে ওই বাড়ীতে হামলা চালায়। হামলাকালে রেজাউল ইসলামের হাতে থাকা রাম দা দিয়ে উজ্জল মোল্যার মাথায় ডান পাশে কোপ মারে। তাকে ১৮টি সেলাই দেওয়া হয়। সোহেলের হাতে থাকা ছ্যান দিয়ে মাথার বাম পাশে কোপ মারলে ৮টি সেলাই দেওয়া হয়। ইব্রাহিমের হাতে থাকা রাম দা দিয়ে মাথার পিছনে কোপ মারলে ৬টি সেলাই দেওয়া হয়। ফাইজুর তার হাতে থাকা রাম দিয়ে মাজার উপর কোপ মারলে ১০টি সেলাই দেওয়া হয়। অন্যান্যরা বাঁশের লাঠি, লোহার রড, কাঠের বাটাম দিয়ে শরীরের বিভিন্ন স্থানে পিটিয়ে জখম করে। উজ্জলের পকেটে থাকা ৫০ হাজার টাকা খোকন শেখ চুরি করে নিয়ে যায়। ভাইকে বাঁচাতে ইব্রাহিম এগিয়ে আসলে আকিদুল রাম দা দিয়ে মাথায় কোপ মারে এতে ৯টি সেলাই দেওয়া হয়। শাহিদুল ইসলাম তার হাতে থাকা হাতুরী দিয়ে কপালের উপর আঘাত করে। কপালে ৪টি সেলাই দেওয়া হয়। তাদের চিৎকারে আশপাশের লোকজন তাদেরকে উদ্ধার করে বালিয়াকান্দি হাসপাতালে ভর্তি করে। এ ব্যাপারে গত ১৫ জুন রাজবাড়ীর ৪নং আমলী আদালতে উজ্জল মোল্যা বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেন। বিজ্ঞ বিচারক মামলাটি এফআইআরের জন্য বালিয়াকান্দি থানার ওসিকে নির্দেশ প্রদান করেন। মামলার বাদী উজ্জল মোল্যা অভিযোগ করে বলেন, আসামীরা এলাকায় শালিস করে টাকা নেওয়া, নারুয়া বাজারের বিভিন্ন ব্যবসায়ীর নিকট থেকে টাকা উত্তোলন করে ভাগবাটোয়ারা, বিভিন্ন লোকজনকে চাকুরীর নামে টাকা নেওয়ায় অসহায় মানুষদের সাথে নিয়ে মানববন্ধন করাসহ তাদের অন্যায় কাজে বাধা দেওয়ায় এবং আমি নারুয়া বাজারের ইজারা গ্রহণ করায় তাদের উপার্জন বন্ধ হয়ে পড়ায় আমার উপর ক্ষিপ্ত হয়ে হামলা চালায়। মামলা দায়ের করার পরও আসামীরা প্রভাবশালী হওয়ায় এলাকায় বুক ফুলিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছে। তাদের হুমকি-ধমকির কারণে জীবনের নিরাপত্তাহীনতায় আমি পরিবার পরিজন নিয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছি। বালিয়াকান্দি থানার ওসি তারিকুজ্জামান বলেন, অপরাধী যেই হোক, তার কোন ছাড় নেই। আসামী গ্রেফতারে অভিযান অব্যহত রয়েছে।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *