একজন মানবিক চিকিৎসককে হারাতে চান না কুষ্টিয়াবাসী


= আরএমও তাপস কুমার সরকারের বদলী আদেশ=

নিজস্ব প্রতিবেদক

কুষ্টিয়া ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক (আরএমও) ডাঃ তাপস কুমার সরকারের বদলীর আদেশে ক্ষোভ প্রকাশ করেছে কুষ্টিয়াবাসী। এমনকি বদলী আদেশে হাসপাতালের চিকিৎসক-নার্স, তৃতীয়– চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারীদের মধ্যেও ক্ষোভ ও হতাশা দেখা দিয়েছে। গতকাল রোববার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহা-পরিচালকের পক্ষে পরিচালক প্রশাসন ডাঃ শেখ মোহাম্মদ হাসান ইমাম স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপনে তাকে ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালের ভারপ্রাপ্ত আবাসিক চিকিৎসক (আরএমও) হিসেবে বদলীর আদেশ দেওয়া হয়েছে। সাম্প্রতিক সময়ে সাধারণ রোগীদের পাশাপাশি মহামারি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করতে দিনরাত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন তিনি।
হাসপাতাল সুত্রে জানা গেছে, বর্তমানে জেলায় করোনা পরিস্থিতি খুবই ভয়াবহ। হাসপাতালে করোনার ২০০ শয্যার বিপরীতে ৩০০ রোগী ভর্তি আছেন। এত রোগীর সেবা দিতে হাসপাতালে চিকিৎসক ও নার্সরা হিমশিম খাচ্ছেন। করোনাকালে তাপস কুমার সবাইকে সঙ্গে নিয়ে করোনা মোকাবিলা করে যাচ্ছিলেন।
এদিকে হঠাৎ আরএমও বদলি করলে হাসপাতাল ব্যবস্থাপনা ভেঙে পড়তে পারে বলে জানিয়েছেন হাসপাতাল সংশ্লিষ্টরা। অনতিবিলম্বে আরএমওর বদলি আদেশ প্রত্যাহার করার দাবি জানান তাঁরা।
হাসপাতালের তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণির কয়েক কর্মচারী নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, সোমবার সকালে তাঁরা এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন। প্রয়োজনে তাঁরা কর্মবিরতিতেও যেতে পারেন। যেভাবেই হোক আরএমওকে এ হাসপাতালে রাখতে হবে বলে দাবি জানান তাঁরা। আরএমওর বদলির ঘটনায় কুষ্টিয়া শহরের সচেতন মহলও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন।
সুত্র জানায, ডা. তাপস কুমার সরকার একজন বীরমুক্তিযোদ্ধার সন্তান। ১৯৮৮ সালে তিনি কুষ্টিয়া জিলা স্কুল থেকে এসএসসি পাশ করেন। পরবর্তীতে ১৯৯৯ সালে তিনি চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে মেডিকেল কোর্সে পড়াশুনা শেষ করে ডাক্তারী সনদ লাভ করেন। ২০০৮ সালে কুষ্টিয়া ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসক হিসেবে যোগদান করেন। ২০১৯ সালে তিনি কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের ভারপ্রাপ্ত তত্ত্বাবধায়কের দায়িত্বে ছিলেন। একজন ভালো চিকিৎসক হিসেবে বিভিন্ন চিকিৎসক সংগঠনের স্বনামধন্য পদের অধিকারী হয়েছেন। তিনি বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশন বিএমএ কুষ্টিয়া জেলা শাখার যুগ্ম- সাধারণ সম্পাদক এবং স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ কুষ্টিয়া জেলা শাখার যুগ্ম-সাধারন সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। ডাঃ তাপস কুমার সরকার চাকরী জীবন থেকেই অসহায় নিরীহ মানুষের চিকিৎসক হিসেবে নিষ্ঠার সাথে চিকিৎসা সেবা প্রদান করে আসছেন। ২০২০ সাল থেকে সারা বিশ্বের ন্যায় বাংলাদেশের মহামারি করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের মধ্যে করোনার ব্যাপক সংক্রমন শুরু হয়েছে। সীমান্তবর্তী জেলা হিসেবে কুষ্টিয়াতেও ব্যাপক হারে করোনায় মানুষ আক্রান্ত হচ্ছে। কুষ্টিয়া জেলায় করোনা আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা সেবা শুধুমাত্র ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতাল ছাড়া অন্য কোথাও নেই। ২০২০ সালের করোনার প্রথম ঢেউ ছাপিয়ে ২০২১ সালে করোনা ভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউয়ে সংক্রমণ ও মৃত্যুও হার অনেক বেশি। হাসপাতালটির আবাসিক মেডিকেল অফিসারের দায়িত্ব পালনের কারনে ডা. তাপস কুমার সরকারের উপর চিকিৎসা সেবার চাপ অনেক বেড়েছে। প্রতিদিন নতুন নতুন করোনায় আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা সেবা প্রদানে দিনরাত পরিশ্রম করে চলেছেন তিনি। প্রতিদিন কুষ্টিয়া জেলায় গড়ে ২০০ জনেরও বেশি করোনায় আক্রান্ত হচ্ছেন। এতে হাসপাতালে রোগীর চাপ বেড়েই চলেছে। ডা. তাপস কুমার সরকার সব পরিস্থিতি সামাল দিয়ে চিকিৎসা সেবা প্রদান করে চলেছেন। অনেক রোগী মারা যাচ্ছে, অনেক রোগী শ্বাসকষ্টে ভুগছে। চোখের সামনে এতগুলো মানুষের মৃত্যুতেও পিছু পা হাটেননি তিনি। সংক্রমণ ও মৃত্যু ভয়কে উপেক্ষা করে ২৪ ঘন্টা করোনায় আক্রান্ত রোগীদের পাশে থেকে চিকিৎসা সেবা প্রদান করে চলেছেন। কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে তার সাথে সাক্ষাৎ এ গেলে দেখা যায় তার ব্যস্ততা। নানা চাপ সামলাচ্ছেন। একদিকে সাধারণ রোগী অন্যদিকে করোনা ওয়ার্ড। এছাড়া করোনা প্রতিরোধ কমিটির সাথে সমন্বয়, তথ্য জোগাড়সহ নানা কর্মে ব্যস্ত দিন পার করছেন। হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক আবদুল মোমেন জানান, তাপস কুমারকে ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালের আরএমও হিসেবে বদলি করা হয়েছে। আগামী তিন কর্মদিবসের মধ্যে তাঁকে যোগদান করতে বলা হয়েছে।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *