একজন মানবিক চিকিৎসক করোনাযোদ্ধা ডা. তাপস কুমার সরকার



দেহে প্রাণ থাকা পর্যন্ত মানুষের সেবায় নিয়োজিত থাকার অঙ্গীকার

রবিউল ইসলাম হৃদয়

কুষ্টিয়ার করোনাযোদ্ধা খ্যাত ডা. এ এস এম মুসা কবীরের পরেই যার অবস্থান তিনি হলেন কুষ্টিয়া ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার মানবিক চিকিৎসক ডাঃ তাপস কুমার সরকার। সাম্প্রতিক সময়ে সাধারণ রোগীদের পাশাপাশি মহামারি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করতে দিনরাত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন। ডা. তাপস কুমার সরকার একজন বীরমুক্তিযোদ্ধার সন্তান। ১৯৮৮ সালে তিনি কুষ্টিয়া জিলা স্কুল থেকে এসএসসি পাশ করেন। পরবর্তীতে ১৯৯৯ সালে তিনি চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে মেডিকেল কোর্সের পড়াশুনা শেষ করে ডাক্তারী সনদ লাভ করেন। ২০০৮ সালে কুষ্টিয়া ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসক হিসেবে যোগদান করেন। ২০১৯ সালে তিনি কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের ভারপ্রাপ্ত তত্ত্বাবধায়কের দায়িত্বে ছিলেন। একজন ভালো চিকিৎসক হিসেবে বিভিন্ন চিকিৎসক সংগঠনের স্বনামধন্য পদের অধিকারী হয়েছেন। তিনি বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশন বিএমএ কুষ্টিয়া জেলা শাখার যুগ্ম- সাধারণ সম্পাদক এবং স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ কুষ্টিয়া জেলা শাখার যুগ্ম-সাধারন সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। ডাঃ তাপস কুমার সরকার চাকরী জীবন থেকেই অসহায় নিরীহ মানুষের চিকিৎসক হিসেবে নিষ্ঠার সাথে চিকিৎসা সেবা প্রদান করে আসছেন। ২০২০ সাল থেকে সারা বিশ্বের ন্যায় বাংলাদেশের মহামারি করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের মধ্যে করোনার ব্যাপক সংক্রমন শুরু হয়েছে। সীমান্তবর্তী জেলা হিসেবে কুষ্টিয়াতেও ব্যাপক হারে করোনায় মানুষ আক্রান্ত হচ্ছে । কুষ্টিয়া জেলায় করোনা আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা সেবা শুধুমাত্র ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতাল ছাড়া অন্য কোথাও নেই। ২০২০ সালের করোনার প্রথম ঢেউ ছাপিয়ে ২০২১ সালে করোনা ভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউয়ে সংক্রমণ ও মৃত্যুও হার অনেক বেশি। হাসপাতালটির আবাসিক মেডিকেল অফিসারের দায়িত্ব পালনের কারনে ডা. তাপস কুমার সরকারের উপর চিকিৎসা সেবার চাপ অনেক বেড়েছে। প্রতিদিন নতুন নতুন করোনায় আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা সেবা প্রদানে দিনরাত পরিশ্রম করে চলেছেন তিনি। প্রতিদিন কুষ্টিয়া জেলায় গড়ে ১০০ জনেরও বেশি করোনায় আক্রান্ত হচ্ছেন। এতে হাসপাতালে রোগীর চাপ বেড়েই চলেছে। ডা. তাপস কুমার সরকার সব পরিস্থিতি সামাল দিয়ে চিকিৎসা সেবা প্রদান করে চলেছেন। অনেক রোগী মারা যাচ্ছে, অনেক রোগী শ^াসকষ্টে ভুগছে। চোখের সামনে এতগুলো মানুষের মৃত্যুতেও পিছু পা হাটেননি তিনি। সংক্রমণ ও মৃত্যু ভয়কে উপেক্ষা করে ২৪ ঘন্টা করোনায় আক্রান্ত রোগীদের পাশে থেকে চিকিৎসা সেবা প্রদান করে চলেছেন। কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে তার সাথে সাক্ষাৎ এ গেলে দেখা যায় তার ব্যস্ততা। নানা চাপ সামলাচ্ছেন। একদিকে সাধারণ রোগী অন্যদিকে করোনা ওয়ার্ড। এছাড়া করোনা প্রতিরোধ কমিটির সাথে সমন্বয়, তথ্য জোগাড়সহ নানা কর্মে ব্যস্ত দিন পার করছেন। কাজের ফাঁকে কথা হয় ডাঃ তাপস কুমার সরকারের সাথে। তিনি প্রতিবেদকে বলেন,আমি মানুষের চিকিৎসা সেবা প্রদান করার জন্য ডাক্তার হয়েছি। যতক্ষন এ দেহে প্রান রবে ততক্ষন আমি মানুষের সেবায় নিয়োজিত থাকবো।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *