করোনায় একদিনে ৯৭ মৃত্যু



আলো ডেস্ক

দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্তদের মধ্যে আরও ৯৭ জনের মৃত্যু হয়েছে; একদিনে আরও ৩ হাজার ৩০৬ জনের মধ্যে ধরা পড়েছে সংক্রমণ।
স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানিয়েছে, সোমবার সকাল পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় ৯৭ জনের মৃত্যু হওয়ায় দেশে করোনাভাইরাসে মৃতের সংখ্যা ১১ হাজার ১৫০ জনে পৌঁছাল।
আর গত এক দিনে আরও ৩ হাজার ৩০৬ জনের মধ্যে সংক্রমণ ধরা পড়ায় দেশে এ পর্যন্ত শনাক্ত রোগীর সংখ্যা বেড়ে ৭ লাখ ৪৮ হাজার ৬২৮ জন হল।
সরকারি হিসাবে আক্রান্তদের মধ্যে আরও ৪ হাজার ২৪১ জন গত এক দিনে সেরে উঠেছেন। সব মিলিয়ে সুস্থ হয়েছেন ৬ লাখ ৬১ হাজার ৬৯৩ জন।
বাংলাদেশে করোনাভাইরাসের প্রথম সংক্রমণ ধরা পড়েছিল গতবছর ৮ মার্চ; তা সাত লাখ পেরিয়ে যায় গত ১৪ এপ্রিল। সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউয়ের মধ্যে গত ৭ এপ্রিল রেকর্ড ৭ হাজার ৬২৬ জন নতুন রোগী শনাক্ত হয়।
প্রথম রোগী শনাক্তের ১০ দিন পর গত বছরের ১৮ মার্চ দেশে প্রথম মৃত্যুর তথ্য নিশ্চিত করে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। এ বছর ২৫ এপ্রিল তা ১১ হাজার ছাড়িয়ে যায়। এর মধ্যে ১৯ এপ্রিল রেকর্ড ১১২ জনের মৃত্যুর খবর দেয় স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।
বিশ্বে শনাক্ত কোভিড-১৯ রোগীর সংখ্যা ১৪ কোটি ৭২ লাখ ছাড়িয়েছে। মৃত্যু হয়েছে ৩১ লাখ ১০ হাজারের বেশি মানুষের।
জনস হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের তালিকায় বিশ্বে শনাক্তের দিক থেকে ৩৩ তম স্থানে আছে বাংলাদেশ, আর মৃতের সংখ্যায় রয়েছে ৩৭তম অবস্থানে।
স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানিয়েছে,গত ২৪ ঘণ্টায় সারা দেশে ৩৫০টি ল্যাবে ২৫ হাজার ৭৮৬টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এ পর্যন্ত পরীক্ষা হয়েছে ৫৩ লাখ ৭১ হাজার ২৮৭টি নমুনা।
২৪ ঘণ্টায় নমুনা পরীক্ষার বিবেচনায় শনাক্তের হার ১২ দশমিক ৮২ শতাংশ, এ পর্যন্ত মোট শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৯৪ শতাংশ। শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৮৮ দশমিক ৩৯ শতাংশ এবং মৃত্যুর হার ১ দশমিক ৪৯ শতাংশ।
সরকারি ব্যবস্থাপনায় এ পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ৩৯ লাখ ৭৪ হাজার ৮৪৭টি। আর বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় হয়েছে ১৩ লাখ ৯৬ হাজার ৪৪০টি।
গত এক দিনে যারা মারা গেছেন, তাদের মধ্যে ৬১ জন পুরুষ আর নারী ৩৬ জন। তাদের ৪৯ জন সরকারি হাসপাতালে, ৪৪ জন বেসরকারি হাসপাতালে মারা যান। বাসায় মারা যান তিন জন, আর একজনকে মৃত অবস্থায় হাসপাতালে নেওয়া হয়।
তাদের মধ্যে ৫৯ জনের বয়স ছিল ৬০ বছরের বেশি, ২১ জনের বয়স ৫১ থেকে ৬০ বছর, ১০ জনের বয়স ৪১ থেকে ৫০ বছর, ৪ জনের বয়স ৩১ থেকে ৪০ বছর, ২ জনের বয়স ২১ থেকে ৩০ বছর এবং ১ জনের বয়স ১১ থেকে ২০ বছরের মধ্যে ছিল।
মৃতদের মধ্যে ৬৩ জন ঢাকা বিভাগের, ১২ জন চট্টগ্রাম বিভাগের, ৪ জন রাজশাহী বিভাগের, ৬ জন খুলনা বিভাগের, ৩ জন বরিশাল বিভাগের, ৬ জন সিলেট বিভাগের, ২ জন রংপুর বিভাগের এবং ১ জন ময়মনসিংহ বিভাগের বাসিন্দা ছিলেন।
দেশে এ পর্যন্ত মারা যাওয়া ১১ হাজার ১৫০ জনের মধ্যে আট হাজার ১৮১ জনই পুরুষ এবং দুই হাজার ৯৬৯ জন নারী। তাদের মধ্যে ৬ হাজার ৩৩৩ জনের বয়স ছিল ৬০ বছরের বেশি। এছাড়াও ২ হাজার ৭১২ জনের বয়স ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে, ১ হাজার ২৩৭ জনের বয়স ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে, ৫৫০ জনের বয়স ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে, ২০১ জনের বয়স ২১ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে, ৭৫ জনের বয়স ১১ থেকে ২০ বছরের মধ্যে এবং ৪২ জনের বয়স ছিল ১০ বছরের কম।
এর মধ্যে ৬ হাজার ৫১৪ জন ঢাকা বিভাগের, ২ হাজার ১২ জন চট্টগ্রাম বিভাগের, ৫৮২ জন রাজশাহী বিভাগের, ৬৭৯ জন খুলনা বিভাগের, ৩৩১ জন বরিশাল বিভাগের, ৩৭৯ জন সিলেট বিভাগের, ৪১৭ জন রংপুর বিভাগের এবং ২৩৬ জন ময়মনসিংহ বিভাগের বাসিন্দা ছিলেন।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *