কাছের বন্ধু গ্রাম পুলিশ (পর্ব-৫)


admin প্রকাশের সময় : মে ৩০, ২০২২, ৬:৩২ পূর্বাহ্ন /
কাছের বন্ধু গ্রাম পুলিশ (পর্ব-৫)

মো. শহিদুল্লাহ

গ্রামপুলিশদের প্যারেড অনুষ্ঠানের পদ্ধতি ও নীতি ইউনিয়ন বোর্ড ও চৌকিদারি ম্যানুয়েলে লিপিবদ্ধ আছে। গ্রামপুলিশদের প্যারেড এমন সময় করতে হবে যাতে সন্ধ্যার মধ্যে গ্রাম পুলিশ তাদের নিজ গ্রামে ফিরে যেতে পারেন। এটা নিশ্চিত করতে গ্রাম পুলিশদের নিয়মানুবর্তী হতে বাধ্য করতে হবে। পুলিশ অফিসারদেরও নিয়মানুবর্তী হতে হবে। অকারনে গ্রামপুলিশদের আটকে রাখা যাবে না। থানার অফিসার ইনচার্জ গ্রাম পুলিশ প্যারেড অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করবেন। কোন যুক্তিগ্রাহ্য কারণ ছাড়া এই ক্ষমতা হস্তান্তর করা যাবে না। যদি করতেই হয় তাহলে যুক্তিগ্রাহ্য কারণ কী তা থানার জেনারেল ডায়েরিতে লিপিবদ্ধ করতে হবে। প্যারেডে অংশগ্রহণকারী প্রত্যেক চৌকিদার দফাদারকে ইউনিফর্ম পরিহিত অবস্থায় থাকতে হবে৷ থানা কম্পাউন্ডে এই প্যারেড অনুষ্ঠিত হবে। গ্রামপুলিশদের হাজিরা রেজিস্টারে প্যারেড অনুষ্ঠান পরিচালনাকারী অফিসার রেকর্ডভুক্ত করবেন। যারা উপস্থিত থাকবেন তাদের নাম কালো কালিতে এবং যারা অনুপস্থিত থাকবেন তাদের নাম লাল কালিতে লিপিবদ্ধ করতে হবে। প্যারেডে অনুপস্থিত চৌকিদার দফাদারদের নাম তাৎক্ষণিকভাবে থানায় জেনারেল ডায়েরিতে লিপিবদ্ধ করতে হবে। যে মাসে চৌকিদার বা দফাদারদের অনুপস্থিতির কারণ ব্যাখ্যা করা হয় নাই বা যদি সন্দেহ হয় ব্যাখ্যা সন্তোষজনক নয় তাহলে তাদের নাম পরবর্তী মাসের প্রথম সপ্তাহে তাদের বিরুদ্ধে বিপি ফরম ৬৪ অনুযায়ী শাস্তির জন্য শাস্তি প্রদানকারী অফিসারের নিকট প্রেরণ করতে হবে। পুলিশ স্টেশনে বেতনের দিন যে প্যারেড হবে তাতে ভালো কাজের জন্য গ্রামপুলিশদের পুরস্কার বিতরণ করা হবে। গ্রাম পুলিশ প্যারেড-এর উদ্দেশ্য হলো জেলার অপরাধ বিষয়ে অনেক তথ্য গ্রামপুলিশ প্যারেড থেকে সংগ্রহ করা। এতে করে প্রত্যন্ত গ্রামের প্রকৃত অবস্থা সম্পর্কে প্রয়োজনীয় খবরাদি জোগাড় করা যায়। গ্রামের যাবতীয় বিষয়ের উপর নজর রাখার দায়িত্ব গ্রামপুলিশের। পুলিশ স্টেশনের অফিসার ইনচার্জ সময় মত খবর পেয়ে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারেন এবং কোনরকম অসুবিধা সৃষ্টি না করে পুলিশ প্রশাসন যাতে সুষ্ঠুভাবে চালাতে পারেন এজন্য এই সমস্ত খবরের একান্ত প্রয়োজন। সন্দেহভাজন ও অসচ্চরিত্রের লোকদের সম্পর্কে খবর জোগাড় করা ব্যতীত গ্রাম পুলিশ প্রয়োজনীয় খবরাদি দিয়ে প্রশাসনকে তাদের কাজে সহায়তা করতে পারেন। ইউনিয়ন পরিষদ ও চৌকিদারি ম্যানুয়েলে এই প্যারেড অনুষ্ঠানের নিয়মকানুন লিপিবদ্ধ করা আছে। গ্রামপুলিশ দের কোনো অসুবিধা সৃষ্টি করে প্যারেড অনুষ্ঠান করা যাবে না। অনুষ্ঠানে এমন সময় হওয়া উচিত যাতে গ্রাম পুলিশগন প্যারেড শেষে সম্ভব হলে সূর্যাস্তের পূর্বে তাদের নিজ নিজ বাড়ি ফিরে যেতে পারেন। ‘সম্ভব হলে’ কথাটা এই অর্থে ব্যবহার করা হয়েছে যে গ্রামপুলিশগন সূর্যাস্তের কিছু পরে হলেও বাড়িতে ফিরতে পারবেন না এমন কোন কথা নয় সময়ানুবর্তিতা হলো আসল কথা। সমস্ত কাজ সময়মতো করতে পারলে কার্যকরভাবে অপরাধ নিয়ন্ত্রিত প্রশাসনিক ব্যবস্থা চালু রাখা সম্ভব৷ সুতরাং গ্রামপুলিশদের সময়ানুবর্তিতা থাকতে হবে। তা নিশ্চিত করবার জন্য যথাযথ নির্দেশ থানা থেকে জারি করতে হবে পুলিশ প্রবিধান ৩৬৯ বিধি) গ্রাম পুলিশ প্যারেড পরিচালনাকারী অফিসার গ্রামপুলিশদের নিকট থেকে তার এলাকার (১)জন্ম,(২) মৃত্যু,(৩) মহামারী,(৪) অগ্নি, (৫)শস্যের অবস্থা,(৬) গবাদিপশুর রোগ,(৭) জরিপ পিলার সরকারি গাছ ফুল ব্রিজ ইত্যাদির ক্ষতি,(৮) তাদের গ্রামে বিদেশি অপরাধী বা সুইলার গোত্রের আগমন,(৯) অসৎ চরিত্রের লোকদের গতিবিধি,(১০) তাদের গ্রামে সন্দেহভাজন ব্যক্তি বা তালিকাভুক্ত অসৎ চরিত্রের লোকের আগমন,(১১) গবাদিপশুকে বিষ প্রয়োগ করে এমন সন্দেহভাজন ব্যক্তি,(১২) হারানো বা বেওয়ারিশ পশু (১৩) কোন সন্দেহজনক নৌকার আগমণ,(১৪) কোন সংঘর্ষের আশঙ্কা যা আইন শৃঙ্খলা ভঙ্গের কারণ হতে পারে৷(১৫) সরকারি রাস্তার ক্ষতি বা দখল,(১৬) অন্য কোন বিষয় যা প্যারেড পরিচালনাকারী অফিসার জানতে বা জানার জন্য আদিষ্ট হয়েছেন। প্যারেড পরিচালনাকারী অফিসার এসব বিষয় সম্পর্কে জেনে তা নোট আকারে লিখে রাখবেন এবং প্যারেড শেষে তা থানার জেনারেল ডায়েরিতে লিপিবদ্ধ করবেন। ১ এবং ২ নম্বর ক্রমিকে উল্লেখিত বিষয় গ্রাম এলাকা থেকে সংগ্রহ করতে হবে, তবে অস্বাভাবিক মৃত্যুর খবর সমস্ত এলাকা থেকে সংগ্রহ করতে হবে কারণ
পুলিশ প্রবিধান ২৩৪ বিধি এবং ফৌজদারি কার্যবিধির ৪৫ ধারার অধীনে এই দায়িত্ব গ্রামপুলিশের উপরই বর্তায়। কোন গ্রাম পুলিশের কোন বিষয়ে তথ্য প্রদান করার থাকলে তিনি দাড়িয়ে থাকবেন এবং তার কথা রেকর্ড ভুক্ত না হওয়া পর্যন্ত দাড়িয়ে থাকবেন। আইটেম ৯ এবং ১৫ এর বিষয় কোন চৌকিদার বা দফাদারের কোন তথ্য দেয়া থাকলে এবং অন্য কোন গ্রাম পুলিশের নিকট থেকে প্যারেড পরিচালনাকারীর জানার থাকলে তিনি তাঁকে অন্যের নিকট থেকে পৃথক করে আলাদাভাবে তার নিকটথেকে উত্তর জিজ্ঞাসা করতে পারেন যাতে কোরে অন্য কেউ শুনতে না পারে। তাতে করে গ্রামপুলিশদের এই মর্মে বিশ্বাস জন্মাবে যে তার দেওয়া তথ্য গোপনই থাকবে। অন্যান্য গ্রামপুলিশদের তখন চলে যেতে অনুমতি দেওয়া যাবে৷ তবে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য যাদের রেখে দেওয়া হবে তাদের বেশি সময় রাখা যাবে না। এ ধরনের তদন্ত সব সময় থানার ওসি করবেন এবং প্রাপ্ত ফলাফল জেনারেল ডায়েরিতে লিপিবদ্ধ করে রাখবেন। আইটেম ১ এবং ৯ উল্লেখিত প্রশ্নের উত্তর ওসির তত্ত্বাবধানে সেকেন্ড অফিসার বা অন্য সাব-ইন্সপেক্টর লিপিবদ্ধ করতে পারবেন, তবে শর্ত থাকে যে ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা প্রাপ্ত তথ্য সম্পর্কে অবহিত থাকবেন৷ কোন গ্রাম পুলিশের গোপন তথ্য দেওয়া থাকলে এবং ওসি সরাসরি প্রশ্ন না করলে তিনি থানার জিডিতে তা লিপিবদ্ধ করবেন৷ ১ এবং ২ নম্বর আইটেমে প্রাপ্ত তথ্যাদি থানার জন্ম ও মৃত্যু রেজিস্টারের লিপিবদ্ধ করতে হবে৷ এবং সাধারণ ডায়েরি ও অন্যান্য সূত্র এবং আইটেম ৮ ৯ ১৪ থেকে পাওয়া তথ্যাদি থানার ভিলেজ ক্রাইম নোটবুকের অপরাধ অংশে লিপিবদ্ধ করতে হবে। জন্ম ও মৃত্যুর রিপোর্ট চাওয়া হলে প্রত্যেক চৌকিদার ইউনিয়ন পরিষদ সদস্যের সত্যায়িত হাতচিটা অফিসার কে প্রদান করবেন। হাতচিটা শূন্য প্রতিবেদনেরও হতে পারে। গ্রাম পুলিশ প্যারেড চলাকালীন জন্ম ও মৃত্যু রেজিস্টারে তা সন্নিবেশিত করতে হবে। প্যারেড পরিচালনাকারী অফিসার প্রশ্নোত্তরের মাধ্যমে নিশ্চিত হবেন পলাতক, দাগি আসামি, মুক্তিপ্রাপ্ত দোষী ব্যক্তি, সন্দেহজনক চরিত্রের লোক, লাঠিয়াল গ্রামপুলিশদের গ্রামে বসবাস করে কি-না এবং এই ধরনের ব্যক্তির সাথে কারো আত্মীয়তার সম্পর্ক আছে কি-না? বেতন না পাওয়ার বিষয়ে কোন গ্রাম পুলিশ অভিযোগ করলে তা সাধারণ ডায়েরিতে লিপিবদ্ধ করতে হবে (পুলিশ প্রবিধান ৩৭০ বিধি) গ্রামপুলিশদের কাজের উপর বিশেষ নজরদারি রাখার জন্য সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার এর উপর সরকারের নির্দেশ রয়েছে। থানা বা ইউনিয়ন পরিষদ অফিসে গ্রাম পুলিশদের প্যারেডে উপস্থিত থাকার জন্য তাদের উৎসাহিত করা হয়েছে। থানায় অনুষ্ঠিত গ্রামপুলিশ প্যারেডে সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপারগন প্রয়োজনীয় তথ্য পাওয়ার সুযোগ পাবেন এবং তাদের নিকট থেকে তথ্য সংগ্রহ করে থানা পুলিশ এবং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানকে তা দিয়ে সাহায্য করতে পারবেন। পুলিশ অফিসারদের উচিত সার্কেল সহকারী পুলিশ সুপারদের সহায়তা করা এবং কোন বিশেষ তথ্য সংগ্রহ চৌকিদার বা দফাদাফদের কাজের ত্রুটি সম্পর্কে সার্কেল সহকারী পুলিশ সুপারকে অবহিত করা (পুলিশ প্রবিধান ৩৭১ বিধি)