কার মুখে ফুটবে হাসি, পর্তুগাল না জার্মানি?



আলো ডেক্স

ইউরোর শ্রেষ্ঠত্বের মঞ্চে আজ আরেকটি মহারণ। মুখোমুখি প্রতিযোগিতার দুই হট ফেভারিট পর্তুগাল ও জার্মানি। দুই দলের প্রতিযোগিতার শুরুটা হয়েছিল ভিন্ন স্বাদে। পর্তুগাল হাঙ্গেরিকে ৩-০ গোলে উড়িয়ে দেয়। জার্মানি আত্মঘাতি গোলে হেরে যায় বিশ্বচ্যাম্পিয়ন ফ্রান্সের কাছে। তাইতো আজকের ম্যাচে দুই দলের লক্ষ্য ভিন্ন। জার্মানির হোম ভেন্যু অ্যালিয়ান্জ আরিয়ানে দুই দল বাংলাদেশ সময় রাত ১০টায় মাঠে নামবে। শেষ ষোলোয় খেলার আশা বাঁচিয়ে রাখার জন্য আজ জিততেই হবে থমাস মুলারদের। নয়তো ইউরো শেষ। পর্তুগালের জন্যও এই ম্যাচের গুরুত্ব অপরিসীম। জার্মানির বিরুদ্ধে জিতে এক ম্যাচ বাকি থাকতেই শেষ ষোলোয় খেলা নিশ্চিত করতে মরিয়া ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোরা। শেষ ১৮ মুখোমুখির পরিসংখ্যানে হতাশ-ই হবেন পর্তুগালের সমর্থকরা। কারণ ১০টিই যে জিতেছে জার্মানি। বিপরীতে পর্তুগালের জয় ৩টি, ড্র হয়েছে ৫ ম্যাচ। আবার শেষ ৪ মুখোমুখির সবকটি জিতেছে জার্মানরা। ২০১৪ বিশ্বকাপের গ্রুপ ম্যাচে দুই দল শেষ মুখোমুখি হয়েছিল। ম্যাচে স্রেফ উড়ে যায় রোনালদোরা। ম্যাচ জেতে ৪-০ গোলে। মিউনিখে পর্তুগাল-জার্মানি ম্যাচে প্রধান আকর্ষণ অবশ্যই রোনালদো ও মুলার দ্বৈরথ। হাঙ্গেরির বিপক্ষে জোড়া গোল করে ইউরোর চ্যাম্পিয়নশিপে সর্বোচ্চ গোল করার রেকর্ড নিজের করে নেন রোনালদো। মুলার জাতীয় দলে ফেরেন আড়াই বছর পর। তবে দলের সেরা তারকা সেদিন মেলে ধরতে পারেননি নিজেকে। মহারণ নিয়ে পর্তুগালের কোচ ফার্নান্দো সান্তোস বলেন, ‘আমি জার্মানিকে নিয়ে মোটেও ভিত নই। আসলে দুই দল একে অপরকে শ্রদ্ধা করে কারণ তারা প্রত্যেকেই একে অপরের শক্তিমত্তা সম্পর্কে অবগত। জার্মানির মাঠে তাদের বিপক্ষে খেলা কঠিন। তবুও বলবো পর্তুগাল ফেবারিট। আমরা জিততে চাই। ড্রয়ের চিন্তাও করছি না।’ জোয়াকিম লো শুধুমাত্র রোনালদোকে নিয়ে ভাবতে নারাজ, ‘পর্তুগাল দল মানেই রোনালদো নয়। রোনালদো বরাবরই ভালো। কিন্তু আর চার-পাঁচজন খেলোয়াড় আছে যারা নিজেদের দিনে সেরা ফুটবল খেলতে পারলে প্রতিপক্ষ উড়ে যেতে পারে। তারা ম্যাচের ভাগ্য নির্ধারণ করে দিতে পারে।’ জার্মানির অগ্নি পরীক্ষার রাত। পর্তুগালের চেনা ছন্দ ধরে রাখার যুদ্ধ। কার মুখে ফুটবে হাসি? সেই প্রশ্ন আপাতত তোলা থাক সময?ের কাছে।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *