কুমারখালীর ভড়ুয়াপাড়া গ্রামে আবারো কৃষক খুন!



কুমারখালী প্রতিনিধি

কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে নিজ বাড়ি থেকে সাড়ে তিনশ গজ দুরের ফাঁকা আবাদি জমি থেকে নজির উদ্দিন ওরফে নাসিম উদ্দিন (৫৯) নামের এক কৃষকের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। গতকাল শনিবার উপজেলার বাগুলাট ইউনিয়নের ভড়ুয়াপাড়া গ্রামের মাদের মাঠের রজব মোল্লার ফাঁকা জমি থেকে মরদেহ উদ্ধার করা হয়। নিহত ব্যক্তি ওই গ্রামের মৃত হায়াত আলীর ছেলে। তবে নিহতের স্বজনদের অভিযোগ পূর্বশত্রুতার জের ধরে প্রতিপক্ষরা নির্মমভাবে হত্যা করেছে। এলাকাবাসী ও নিহতের পরিবার সুত্রে জানা গেছে, স্থানীয় আওয়ামীলীগ সমর্থিত গোলাম সরোয়ার, দুলাল ও জাহিদ এবং বাবলু, মনোয়ার ও আনোয়ার গ্রুপের মধ্যে বিরোধ চলে আসছিল। এরই জেরে গত ২৫ জানুয়ারি বাবলু গ্রুপের সবুর নামের এক কৃষকের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। পরে নিহতের ছেলে থানায় সরোয়ার গ্রুপের সমর্থিতদের আসামী করে মামলা দায়ের করেন। মামলা নিয়েও দুইপক্ষের মধ্যে ব্যাপক উত্তেজনা চলছিল। এরমধ্যে গতকাল শনিবার সকাল ৬টার দিকে সরোয়ার গ্রুপের সমর্থিত নাসিম উদ্দিনের মরদেহ নিজ বাড়ি থেকে সাড়ে তিনশ গজ পশ্চিমে রজব মোল্লার আবাদি জমিতে পড়ে থাকতে দেখে পুলিশ খবর দেওয়া হয়। পুলিশ এসে মরদেহ উদ্ধার করে মর্গে পাঠায়। নিহতের ছেলে মিরাজ বলেন, বাবা প্রায় দিনই ঘরের বাইরে পুকুর পাড়ের বাঁশের চরাটের উপর থাকত। গতকাল রাত ১২টার দিকেও বাবা চরাটের উপর ছিল। এরপর সকাল ৬টার দিকে আমার চাচী শিউলী খাতুন জানায় আমার বাবা নিজ বাড়ি থেকে সাড়ে তিনশ গজ দুরের (পশ্চিমে) রজব মোল্লার জমিতে ঘুমাচ্ছে। আমি দ্রুত মাঠে গিয়ে দেখি বাবার হাত ও পা বাঁধা। উপর হয়ে পড়ে আছে। চোখে মুখে রক্ত ও আঘাতের চিহ্ন। তিনি আরো বলেন, আমি একজন ভ্যানচালক। আমাকে সবুর হত্যা মামলার আসামী করা হয়েছে। পূর্ব শত্রুতার জেরেই আমার প্রতিপক্ষ বাবলু, রুবেল, মনোয়ার ও মতিয়াররা আমার বাবাকে হত্যা করেছে। কুমারখালী থানার অফিসার ইনচার্জ মজিবুর রহমান বলেন, ফাঁকা মাঠ থেকে নজির উদ্দিন নামের একজনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। তিনি আরো বলেন, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে শ্বাসরুদ্ধ করে হত্যা করা হয়েছে। তবে ময়না তদন্তের রিপোর্ট হাতে পেলে প্রকৃত ঘটনা জানা যাবে। এলাকায় আইন শৃঙ্খলা রক্ষায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এদিকে হত্যাকান্ডকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষের কয়েকটি বাড়িতে ভাংচুর ও লুটপাট করেছে সরোয়ার গ্রুপের সমর্থকরা। ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন কুষ্টিয়া অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) আতিকুল ইসলাম।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *