ঘূর্ণিঝড় ইয়াস মোকাবেলায় প্রস্তুত মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষ



জসিম উদ্দিন, মোংলা

ঘূর্ণিঝড় ইয়াস মোকাবেলায় ব্যাপক প্রস্তুতি গ্রহন করেছে মোংলা বন্দর কতৃপক্ষ। বন্দরে অবস্থানরত ১১টি বানিজ্যিক জাহাজ ও অভ্যন্তরিন নৌযান গুলোকে সতর্ক অবস্থানে রেখে পন্য উঠানামার কাজ চালানো হচ্ছে। এছাড়া ঘূর্ণিঝড় মোকাবেলায় গতকাল সোমবার দুপুরে মোংলা বন্দর কতৃপক্ষ জরুরী প্রস্তুতি মুলক সভা করেছে। বন্দরের প্রশাসনিক ভবনের সভা কক্ষে প্রস্তুতিমুলক সভায় অংশগ্রহন করেন বন্দরের সকল দপ্তরের প্রধানগন। এসময় মোংলা বন্দরকতৃপক্ষের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মুসা ঝড়ের কবল থেকে বানিজ্যিক জাহাজ ও অভ্যন্তরিন নৌযান গুলোকে নিরাপদে রাখতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য দিক নির্দেশনাদেন সবাইকে। পরে সাংবাদিকদের ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের কবল থেকে রক্ষায় তাদের প্রস্তুতির বিষয়ে ব্রিফ করেন বন্দর চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মুসা। এসময় তিনি জানান,মোংলা বন্দর এলাকায় ৪ নম্বর সংকেত জারি করা হলে সাথে সাথে সকল বানিজ্যিক জাহাজের পন্য উঠানামা বন্ধ করে দেয়া হবে। বন্দর জেটি ও বহিঃনোঙ্গরে অবস্থানরত সকল সকল বানিজ্যিক জাহাজ গুলোকে নিরাপদ আশ্রয়ে নেয়া হবে। এছাড়া সকল লাইটার জাহাজ গুলোকে খুলনার রুপসা ব্রীজয়ের উপরে ভৈরব নদীতে নিরাপদে চলে যেতে নির্দেশ দেয়া হবে।ঘূর্ণিঝড়ের ক্ষয়ক্ষতি থেকে বানিজ্যিক জাহাজ ও অভ্যন্তরিন নৌযান গুলোকে রক্ষায় সার্বক্ষনিক যোগাযোগের জন্য একটি কনট্রোলরুস স্থাপন করা হয়েছে। এছাড়া ঘর্ণিঝড় পরবর্তী সময়ে বন্দরের কার্যক্রম স্বাভাবিক রাখতে পরিকল্পনা নানা পরিকল্পনা গ্রহন করা হয়েছে। এছাড়া মোংলা উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ব্যাপক প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। মোংলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কমলেস মজুমদার জানান,উপজেলার ৬টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভায় ১০৩টি আশ্রয় কেন্দ্র প্রস্তুত রাখা হয়েছে। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সয়ের প্রধান ডাক্তার জিবিতেষ বিশ্বাস কে প্রধান করে ৬টি ইউনিয়নের জন্য একটি করে মোট ৬ টি মেডিকেল টিম তৈরী করা হয়েছে। ১ হাজার ৪শ সেচ্চাসেবক কে প্রস্তুত থাকতে বলা হয়েছে। এছাড়া সাইক্লোন সেল্টার গুলোতে মানুষ আশ্রয় নিতে শুরু করলে তাদের জন্য শুকনো খাবার বিতরনের জন্য খাবার মজুদ করা হচ্ছে বলে জানান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা। এদিকে সুন্দরবনের অভ্যন্তরে ঝূকিপূর্ণ ক্যাম্পে দায়িত্বপালনকারী বনরক্ষীদের স্বস্ব রেঞ্জ অফিসে আ¤্রয়ে আসতে বলা হয়েছে বলে জানান, সুন্দরবন চাদপাই রেঞ্জ কর্মকর্তা এনামুল হক। একই সাথে সুন্দরবন সংলগ্ন নদ নদীতে মাছ আহরনে থাকা জেলেদের সোমবার(২৪ মে) রাতের মধ্যে নিরপদে চলে যেতে বলা হয়েছে বন বিভাগের পক্ষ থেকে।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *