জ্বর-ঠান্ডা নিয়েও করোনা পরীক্ষায় অনীহা




কুমারখালী প্রতিনিধি

কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে এখন ঘরে ঘরে জ্বর-ঠান্ডার রোগী। করোনার উপসর্গ নিয়েই স্বাস্থ্যবিধি না মেনেই পরিবার পরিজন নিয়ে বসবাস করছে তারা। কিন্তু করোনা টেষ্ট করাচ্ছেন না তারা। এতে সংক্রমণের ঝুঁকি বৃদ্ধি পাচ্ছে। অপরদিকে গত ২৪ ঘণ্টায় উপজেলায় করোনা ও উপসর্গ নিয়ে সাতজনের মৃত্যু হয়েছে। যা একদিনে রেকর্ড সংখ্যক মৃত্যু। এনিয়ে উপজেলায় মোট মৃত্যুর সংখ্যা ৫১ জন। এছাড়াও গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে ১৬। উপজেলায় মোট সংক্রমণ এক হাজার ৪৭৯ জন। হাসপাতালের আইসোলেশনে আছেন ১৪ জন। এতথ্য নিশ্চিত করে কুমারখালী উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ মোঃ আকুল উদ্দিন বলেন, গত ঘণ্টায় সাতজনের মৃত্যু হয়েছে। যা একদিনে সর্বোচ্চ মৃত্যু। নতুন আক্রান্ত ১৬ জন। তিনি আরো বলেন, গত শনিবার উপজেলায় করোনা সংক্রমণ পরিস্থিতি নিয়ে এক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সভায় ঘরেঘরে জ্বর ঠান্ডা রোগী কিন্তু তারা টেস্ট করাচ্ছেন না, স্বাস্থ্যবিধি মানছে না – এমন বিষয় উঠে আসে এবং তদন্ত করে সত্যতা পাওয়া যায়। আমরা তাদেরকে সকল পরামর্শ পৌছে দেওয়ার চেষ্টা করছি। এদিকে রোববার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত উপজেলার বিভিন্ন এলাকা ঘুরেঘুরে জানা গেছে, প্রায় বাড়িতেই জ্বর-ঠান্ডাজনিত রোগী। তারা স্বাস্থ্যবিধি মানছেন না। টেষ্ট না করিয়ে ফার্মেসী গুলোতে ভিড় করছেন। ফার্মেসীতে জ্বর-ঠান্ডাজনিত ঔষুধের সংকট দেখা দিয়েছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক যদুবয়রা জয়বাংলা বাজারের এক ফার্মেসীস্ট বলেন, প্রচুর পরিমানে জ্বর-ঠান্ডাজনিত ঔষুধ বিক্রি হচ্ছে। যোগান দিতে হিমসিমে পড়ছি। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কুমারখালী পৌরসভার ৯ নং ওয়ার্ডের আরেকজন বলেন, পৌরসভা এলাকায় জ্বর-ঠান্ডা ও করোনা রোগী ঘরেঘরে। টেস্ট না করিয়ে আতঙ্ক ছড়াচ্ছে তারা।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *