প্রলোভনে প্রতারণার শিকার !


স্মার্ট ওয়ার্ক ইন্টারন্যাশনাল লিঃ

নিজস্ব প্রতিবেদক

সহজ সরল মানুষদের টার্গেট করে তাদের বিভিন্ন প্রলোভন দেখিয়ে প্রতারণার মাধ্যমে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়ার ঘটনা বর্তমানে হরহামেশায় দেখা যায়। রাজধানী ঢাকাতে এরকম বহু প্রতিষ্ঠান রয়েছে যাদের কাজ-ই সহজ সরলদের সরলতার সুযোগে তাদেরকে বোকা বানিয়ে টাকা হাতিয়ে নেওয়া। কুষ্টিয়াতেও এরকম প্রতারণার ঘটনা ঘটেছে। বর্তমানে খোঁজ মিলেছে আরো এক প্রতারণাকারী প্রতিষ্ঠানের। যাদের কাজ সহজ সরল মানুষদের টার্গেট করে তাদেরকে চাকুরীর প্রলোভন দেখিয়ে টাকা হাতিয়ে নেওয়া। জানা যায়, কুষ্টিয়া সার্কিট হাউজ ভবনের বিপরীতে অবস্থিত স্মার্ট ওয়ার্ক ইন্টারন্যাশনাল লিমিটেড নামক একটি প্রতিষ্ঠান। এই প্রতিষ্ঠানের শ্লোগান সুবিধাবঞ্চিত মানুষদের কল্যানের কথা বলে স্মার্ট ওয়ার্ক ইন্টারন্যাশনাল লিমিটেড। এধরনের মানবিক শ্লোগানকে ধারণ করেই প্রতারণা করে চলেছে প্রতিষ্ঠান। সূত্র জানায়, এই প্রতিষ্ঠানে চাকরি দেওয়ার নামে বিভিন্ন ভাবে দফায় দফায় হাতিয়ে নেওয়া হচ্ছে লক্ষ লক্ষ টাকা। এমনকি ওই প্রতিষ্ঠানের নারীদেরকেও কুপ্রস্তাব দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। কুপ্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় তাদেরকে চাকরিচূত করা হয়েছে।
জানা যায়, ঝিনাইদহ জেলার শৈলকুপা থানার বসন্তপুর ইউনিয়নের আদর্শপাড়া এলাকার সাজেদুল রহমানের সংসার অভাব অনাটনে চলায় মেয়ে ফারহানা সুলতানা বাবার পাশে দাঁড়িয়ে সংসারে পরিবর্তন আনার জন্য চাকরির জামানত হিসাবে পরিবারের শেষ সম্বল ২৫ হাজার টাকা তুলে দেয় স্মার্ট ওয়ার্ক ইন্টারন্যাশনাল লিমিটেড কুষ্টিয়া শাখার ব্যবস্থাপনা পরিচালক ইখতিয়ার উদ্দিন মিজানের হাতে। টাকা দিলেও চাকুরী হয়নি ফারহানা সুলতানার। এছাড়া এরকম ঘটনার শিকার হয়েছেন কুষ্টিয়া সদর উপজেলার হাটশ হরিপুর ইউনিয়নের বোয়ালদাহ গ্রামের রাহান ড্রাইভারের ছেলে জিন্নাহ। এসবি কাউন্টারে চাকুরীরত ছিলেন জিন্নাহ। চাকুরীরত অবস্থায় স্মার্ট ওয়ার্ক ইন্টারন্যাশনাল লিমিটেড কুষ্টিয়া শাখার ব্যবস্থাপনা পরিচালক ইখতিয়ার উদ্দিন মিজানের প্রলোভনে পড়ে জিন্নাহ ২০ হাজার ৫শ টাকা তুলে দেন তার হাতে। জিন্নাহ ওই প্রতিষ্ঠানের নিজের চেয়ার-টেবিল পর্যন্ত নিয়ে যায়। সেখানে চাকুরীরত অবস্থায় ওই প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তাদের প্রতারণা ও বেহায়াপনার বিষয়টি টের পেয়ে তার টাকা-পয়সা ও চেয়ার টেবিল ফেলে রেখে চলে আসেন জিন্নাহ। বর্তমানে বেকার জীবন কাটাচ্ছে তিনি। ফারহানা সুলতানা-জিন্নাহ সহ ১৫ জনের কাছ থেকে চাকুরী দেওয়ার প্র“তিশ্র“তি দিয়ে হাতিয়ে নিয়েছে কয়েক লক্ষাধিক টাকা। আবার এই ১৫ জনের মাধ্যমেও সহজ-সরল মানুষদের কাছ থেকে হাতিয়ে নিয়েছে লক্ষ লক্ষ টাকা। এদিকে প্রতিষ্ঠানে টাকা দিয়ে চাকুরীতে যোগ দেওয়া এই ১৫ জন মাসের পর মাস পেরিয়ে গেলেও পায়নি তাদের বেতন। জানা যায়, অসহায় ও সুবিধাবঞ্চিত মানুষদের একাধিক সুবিধা দেওয়ার প্রতিশ্র“তি দিয়ে এই ১৫ জনের মাধ্যমে হাতিয়ে নিয়েছে লক্ষ লক্ষ টাকা। এদিকে কোন ধরনের সুবিধা না দেওয়ার কারণে বর্তমানে সকল মাঠকর্মীরা এলাকায় প্রবেশ করতে পারছে না।
এই প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে কুষ্টিয়া মডেল থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন ভুক্তভোগী মাঠকর্মীরা। তারা অভিযোগে উল্লেখ করেন, স্মার্ট ওয়ার্ক ইন্টারন্যাশনাল লিমিটেড কুষ্টিয়া শাখা ব্যবস্থাপনা পরিচালক ইখতিয়ার উদ্দিন মিজান, মার্কেটিং অফিসার খোরশেদ আলম, ফিল্ড সহকারি আঁখি, ডিআই সুপ্তি দীর্ঘদিন ধরে বিভিন্ন মানুষের সাথে প্রতারাণা করে আসছে। আমাদের চাকরি দেবার কথা বলে ২৫ হাজার করে টাকা নেয়। আমাদের বিভিন্ন সুযোগ সুবিধার প্রতিশ্র“তি দিলেও কোন প্রকার সুবিধা দেয়নি এবং ইখতিয়ার উদ্দিন মিজান ও খোরশেদ আলম এখানে কাজ করা মেয়েদের কুপ্রস্তাবসহ লোভ লালসা দেখায়। আমরা রাজি না হয়ে প্রতিবাদ করলে আমাদের কোন বেতন না দিয়ে চাকরি থেকে বহিস্কার করা হয় এবং ভয়ভীতিসহ গালাগালি দেয়। এবিষয়ে কুষ্টিয়া মডেল থানা পুলিশ অফ রিকোডে বলেন, অভিযোগটি আমরা পেয়েছি, এ বিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *