মানসম্মত সেবায় জনগণের আস্থার প্রতীক!


নিউ মডার্ন প্রাইভেট হাসপাতাল এন্ড ডায়গনষ্টিক সেন্টার

নিজস্ব প্রতিবেদক

কুষ্টিয়া সদর উপজেলার লাহিনী বটতলা মোড়ের দমদম সড়ক সংলগ্ন নিউ মডার্ন প্রাইভেট হাসপাতাল এন্ড ডায়গনষ্টিক সেন্টার সাধারন মানুষের সেবা ও আস্থার প্রতিক বলে ব্যাপক সারা মিলেছে। বর্তমানে সারা বাংলাদেশে সরকারি হাসপাতালের চিকিৎসা সেবা হ-জ-ব-র-ল অবস্থার কারনে মানুষ প্রাইভেট হাসপাতাল ও ক্লিনিকের দিকে ঝুকছে। তারমধ্যে অন্যতম নিউ মডার্ন প্রাইভেট হাসপাতাল এন্ড ডায়গনষ্টিক সেন্টারটি জন্মলগ্ন থেকেই মানুষের সেবা প্রদান করে যাচ্ছে। হাসপাতালটি শহরের মুলকেন্দ্রে না হলেও শহরতলীর এলাকায় স্থাপিত হিসেবে বর্তমানে সাধারন মানুষের জন্য সিজার,পিত্তথলিতে পাথর অপারেশন,জরায়ু অপারেশন, এপেডিস সাইড অপারেশন,হার্নিয়া,ডেলিভারী,ইকো,ইসিজি,এক্সরে,আল্ট্রাসনোগ্রাফি,কম্পিউটারাইজড প্যাথলজী সহ বিভিন্ন ধরনের রোগের অপারেশন করে যাচ্ছেন। এসব অপারেশনের জন্য প্রতিষ্ঠানটিতে রয়েছে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক। শুধু তাই নয় প্রতিষ্ঠানটি ডায়েবিটিস ও নবজাতক শিশুদের জন্য বিশেষজ্ঞ ডাক্তার দ্বারা চিকিৎসা সেবা প্রদান করছে। শহরের বড় বড় প্রাইভেট হাসপাতাল ও ডায়গনষ্টিক সেন্টারে চিকিৎসা সেবা পেতে অনেক টাকা খরচ হয় তাই শহরতলীর লাহিনী বটতলার মোড়ে অবস্থিত নিউ মডার্ন প্রাইভেট হাসপাতাল এন্ড ডায়গনষ্টিক সেন্টার গরীব এবং অসহায় মানুষের শেষ ভরসাস্থল হয়েছে। এই প্রতিষ্ঠাটি শহর থেকে একটু দূরে হওয়ার কারনে মানুষকে স্বল্প মুল্যে চিকিৎসা সেবা দিতে পারছে। এ ছাড়াও হাসপাতালটির কেবিন ভাড়া থেকে শুরু করে ডাক্তারের ভিজিট ফি শহরের অন্যান্য হাসপাতালের তুলনায় অনেক কম। যার ফলে গরীব অসহায় মানুষেরা অল্প খরচের মধ্যে ডাক্তারী সেবা এবং চিকিৎসাসেবা পেয়ে যাচ্ছে। শুধু তাই নয় এখানে অভিজ্ঞ নার্স দ্বারা রোগীদের চিকিৎসার দেখাশোনার দায়িত্বে রাখা হয়েছে।এ বিষয়ে প্রতিষ্ঠানের মালিক মোঃ মিজানুর রহমান বাচ্চুর সাথে কথা বললে তিনি বলেন,আমি গরীব অসহায় মানুষের সেবা করার লক্ষ্যে আমার এই হাসপাতালটি চালু করেছি। অন্যান্য হাসপাতাল ও ক্লিনিকের তুলনায় আমার এখানে ডাক্তারের ভিজিট, বেড ভাড়া সহ চিকিৎসার খরচ কম। আমি খুবই স্বল্প লভ্যাংশে প্রতিষ্ঠানটি পরিচালনা করে মানুষের সেবা প্রদান করছি। যাতে সমাজের অসহায় সুবিধাবঞ্চিত মানুষের আমার হাসপাতালটি থেকে চিকিৎসা সেবা নিতে পারে।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *