লকডাউনের নামে সরকার জনগণের সঙ্গে প্রতারণা করছে : ফখরুল



এনএনবি

লকডাউনের নামে সরকার জনগণের সঙ্গে প্রতারণা করছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।
ঢাকাসহ সাত জেলায় করোনা সংক্রমণের ভয়াবহ পরিস্থিতি এবং সরকারের নেয়া পদক্ষেপের ব্যাপারে প্রতিক্রিয়া জানাতে গিয়ে মঙ্গলবার দুপুরে এক সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি মহাসচিব এই অভিযোগ করেন।
গুলশানে চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে এই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। এতে গত ২০ জুন দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সভাপতিত্বে জাতীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠকে নেয়া সিদ্ধান্তগুলো মহাসচিব তুলে ধরেন।
মির্জা ফখরুল বলেন, ‘এটা (লকডাউন) ওয়ার্কেবল না কিন্তু। একটাও কাজ করে না। ঢাকাতেও লকডাউন আছে। আপনি লকডাউন কোথাও দেখতে পান? কোথায় লকডাউন? আমি তো দেখতে পাই না।’
‘যার যেখানে খুশি যাচ্ছে, যার যা খুশি করছে। আমি পরশুদিন দেখলাম, একটা হোটেলে বিয়েও হচ্ছে। অথচ দেয়ার ইজ ব্যান্ড। সরকার এ ব্যাপারে পুরোপুরি উদাসীন এবং লকডাউন তাদের লোক দেখানো একটা ব্যাপার। এটা প্রতারণা মানুষের সঙ্গে যে, আমরা লকডাউন দিচ্ছি, চেষ্টা করছি।’
মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আপনি খেয়াল করে দেখবেন যে, ‘ল অ্যান্ড ফোর্সেস এজেন্সিজ, যাদের এই লকডাউন ইমপ্লিমেন্ট করার কথা তাদেরকেও দেখা যায় না আজকাল। দে আর নট ভিজিবল, তারা ভিজিবল না এখন।’
‘দেখলাম, পত্রিকায় একজন কনস্টেবল মারা গেছেন, তার ছবি দিয়ে বিরাট করে ছাপা হয়েছে। আর এদিকে শত শত লোক মারা যাচ্ছে তাদের কোনো কথা নেই।’
করোনাভাইরাস মোকাবিলায় সরকারের ব্যর্থতার কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, ‘আমি আগেও বলেছি, আর বলতে চাই না। বিশেষ প্রাণী পানি খায়, ঘোলা করে খায় আরকি। আমরা বহু আগেও তাদেরকে (সরকার) বারবার সুনির্দিষ্টভাবে বলেছি, করোনা মোকাবিলায় এসব ব্যবস্থা নেয়া দরকার। তারা নেননি। বহুদিন পরে তারা এখন এসব ব্যবস্থা (লকডাউন) নিচ্ছেন।’
‘এখন বলে বলে আর বলতে ইচ্ছা করে না। কী বলবেন, এদের তো চামড়া মোটা। এই স্বাস্থ্যমন্ত্রীর কবেই পদত্যাগ করা উচিত ছিল। তিন করেননি। দুর্ভাগ্যজনকভাবে উল্টো তারা সবাই সবাইকে ডিফেন্ড করছে। খুব ভালো কাজ করছে। এত ভালো স্বাস্থ্যমন্ত্রী না কি আর হয় না।’
মির্জা ফখরুল বলেন, সভায় অবিলম্বে টিকা সংগ্রহ ও বিতরণের রোডম্যাপ ঘোষণার দাবি জানানো হয়। সরকার এই পরিস্থিতি মোকাবিলা করার জন্য কী ব্যবস্থা গ্রহণ করছে, জনগণ তা জানতে চায়।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *